হরপ্পা সভ্যতাকে নাগরিক সভ্যতা বলা হয় কেনো? হরপ্পা সভ্যতার স্রষ্টা কারা?

হরপ্পা সভ্যতাকে নাগরিক সভ্যতা বলা হয় কেনো?

প্রাপ্ত ধ্বংসাবশেষ থেকে প্রমাণিত হরপ্পায় উন্নত ও সুপরিকল্পিত নাগরিক জীবনযাত্রা ও সংস্কৃতি বিরজমান ছিল।এখানে বিভিন্ন নগর কেন্দ্রগুলিতে প্রশস্ত রাজপথ,বৃহৎ অট্টালিকা, উন্নত পয়:প্রণালী, শৌচাগার,স্নানাগার, সোকপিট,নাগরিকদের স্বাস্থ্য সচেতনতা বোধ,পৌর প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব,মধ্যবিত্তের সমৃদ্ধি চোখে পড়ে।এই সব কারণে ঐতিহাসিক ব্যাসাম, মার্টিমার হুইলার প্রমুখ এই সভ্যতাকে “নাগরিক সভ্যতা” আখ্যা দেন।

হরপ্পা সভ্যতার স্রষ্টা কারা?

মার্টিমার হুইলার মনে করেন যে, হরপ্পা সভ্যতা ছিল সুমেরীয়দের সৃষ্টি।আবার এই সভ্যতার স্রষ্টা হিসাবে আর্য জাতির কথাও অনেক ঐতিহাসিক বলেছেন।আর ফাদার হেরাসের মতে,দ্রাবিড়া ছিল সিন্ধু সভ্যতার স্রষ্টা।সিন্ধু সভ্যতায় প্রাপ্ত নর কঙ্কালগুলির নৃতাত্ত্বিক পরীক্ষায় কয়েকটি মানবগোষ্ঠীর অস্তিত্ব (যথা প্রটো-অস্ট্রোলয়েড, মেডিটেরিয়ান,আলপিনয়েড এবং মঙ্গোলীয়) পাওয়া গেছে।তাই বিভিন্ন জাতির যৌথ প্রচেষ্টাতেই এই সভ্যতা গড়ে উঠেছিল বলে মনে করা হয়।
    * ঐতিহাসিক ব্যাসাম এই সভ্যতাকে দেশজ ও সম্পূর্ণ ভারতীয় বলেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *